সিপিবির নিন্দা

ফ্যাসিবাদী দুঃশাসনেরই বহিঃপ্রকাশ

Facebook Twitter Google Digg Reddit LinkedIn StumbleUpon Email
একতা প্রতিবেদক : গত ১৯ অক্টোবর খুলনায় আটরায় বাম গণতান্ত্রিক জোটের পূর্ব নির্ধারিত অবরোধ কমূসচিতে পুলিশের গুলিবর্ষণ, টিয়ারসেল নিক্ষেপ ও লাঠি চার্জের তীব্র নিন্দা জানিয়েছে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি)। পার্টি সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম ও সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ শাহ আলম এক বিবৃতিতে বলেছেন, রাষ্ট্রায়ত্ত বন্ধ পাটকল খুলে দেয়ার দাবিতে বাম গণতান্ত্রিক জোটের অবরোধ কর্মসূচিতে ইস্টার্ণ জুট মিলের অভ্যন্তরে শ্রমিক কলোনীতে ঢুকে পুলিশ নারী-পুরুষ, শিশু-বৃদ্ধ নির্বিশেষে শারীরিক নির্যাতন চালিয়েছে। পুলিশের লাঠি চার্জে ওয়ার্কার্স পার্টি (মার্কসবাদী)’র সাধারণ সম্পাদক কমরেড ইকবাল কবীর জাহিদ, ইউসিএল’র সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য কমরেড রনজিৎ চট্টপাধ্যায়, সিপিবি নেতা কমরেড এস এম চন্দনসহ শতাধিক নেতাকর্মী আহত হন। পুলিশ কর্মসূচি থেকে পাটকল রক্ষায় সম্মিলিত নাগরিক পরিষদের আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট কুদরত-ই-খুদা, সদস্য সচিব ও সিপিবি নেতা এস এ রশিদ, যুগ্ম আহ্বায়ক ও বাসদ নেতা জনার্দন দত্ত নান্টু, সিপিবি নেতা মিজানুর রহমান বাবু, শ্রমিকনেতা অলিয়ার রহমান, ছাত্র ফেডারেশনের নেতা আল-আমিন শেখ, গণসংহতি আন্দোলনের নেতা মুনীর চৌধুরী সোহেলসহ বিশের অধিক নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করে। নেতৃবৃন্দ বলেন, সরকারের এই ধরণের আচরণ ফ্যাসিবাদী দুঃশাসনেরই বহিঃপ্রকাশ। নেতৃবৃন্দ সরকার ও পুলিশের এই ধরণের আচরণের তীব্র নিন্দা জানান। অবিলম্বে গ্রেফতারকৃতদের নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করেন। নেতৃবৃন্দ দায়ী পুলিশ কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানান। গ্রেপ্তারকৃতদের মুক্তি দাবি ক্ষেতমজুর সমিতির: বাংলাদেশ ক্ষেতমজুর সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ডা. ফজলুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. আনোয়ার হোসেন রেজা এক বিবৃতিতে অবিলম্বে পাটকল রক্ষার আন্দোলনে গ্রেপ্তারকৃত নেতাকর্মীদের মুক্তি ও বন্ধ ঘোষিত রাষ্ট্রায়ত্ত সকল পাটকল আধুনিকায়ন করে খুলে দেওয়ার দাবি জানিয়েছেন। বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেন, বাংলাদেশ কৃষিপ্রধান দেশ এবং পাট তার অন্যতম কৃষিপণ্য। গ্রামীণ জনপদ একসময় এই পাটশিল্পর ওপর নির্ভরশীল হলেও বর্তমানে সরকারের ভুলনীতি ও দুর্নীতির কারণে বিশাল সম্ভাবনাময় পাটশিল্প আজ ধ্বংসের মুখে। নেতৃবৃন্দ বলেন, বিশে^র বিভিন্ন দেশে পাটজাত পণ্যর চাহিদা বাড়লেও বাংলাদেশে পাটকলগুলো বন্ধ করে দেওয়া হচ্ছে। নেতৃবৃন্দ অবিলম্বে গ্রেফতারকৃত নেতাদের মুক্তি ও রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকলগুলো আধুনিকায়ন করে খুলে দিয়ে শ্রমিকসহ গ্রামীণ শ্রমজীবী মানুষের কর্মসংস্থান ও বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনের পথকে সুগম করার জন্য সরকারের প্রতি জোর দাবি জানান। ওয়ার্কার্স পার্টির নিন্দা, ক্ষোভ ও প্রতিবাদ: আটরা শিল্পাঞ্চলে খুলনা-যশোর মহাসড়কে ২৫টি পাটকল চালুর দাবীতে রাজপথ অবরোধ কর্মসূচিতে শ্রমিকদের উপর পুলিশি হামলা ও ব্যাপক লাঠি চার্জের ঘটনায় বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি খুলনা জেলা ও মহানগর কমিটি তীব্র নিন্দা, ক্ষোভ ও প্রতিবাদ জানিয়েছে। দলটির জেলা ও মহানগর নেতৃবৃন্দ এক বিবৃতিতে বলেন, বন্ধ ঘোষিত ২৫টি পাটকল রাষ্ট্রীয়খাতে রেখেই চালু, আধুনিকায়ন করা ও শ্রমিকদের বকেয়া পাওনাদি অবিলম্বে পরিশোধ করে শিল্পাঞ্চলে স্থিতিশীল পরিবেশ ফিরিয়ে আনতে হবে। শ্রমিকদের অধিকার প্রতিষ্ঠার আন্দোলনে ওয়ার্কার্স পার্টি সব সময়ে আছে ও থাকবে।

Print প্রিন্ট উপোযোগী ভার্সন



Login to comment..
New user? Register..